কুরআনে কি মৌমাছিকে দুনিয়ার সব ফল খেতে আদেশ করা হয়েছে?

প্রশ্নোত্তর (Q&A)Category: বিজ্ঞানকুরআনে কি মৌমাছিকে দুনিয়ার সব ফল খেতে আদেশ করা হয়েছে?

সূরা নাহলের ৬৯ নাম্বার আয়াত অনু্যায়ী মৌমাছিকে আল্লাহ সব ফল খাইতে বলছেন। কিন্তু বাস্তবে মৌমাছি সব ফল খায়না। আপনি কিন্তু কোন মৌমাছিকে অবশ্যই নারিকেল বা টক কোন ফল খাইতে দেখেন নাই। মৌমাছি মূলত ফুলের নেক্টার খায়। দ্বিতীয়ত অনেক ট্রান্সলেটর দয়ান্দের মত এই আয়াতটার ট্রান্স লেশনে জালিয়াতি করে তা হইল, লাগায় "প্রত্যেক ফল হতে কিছু কিছু  আহার কর" এইটা জালিয়াতি বিকজ আয়াতে শব্দ্টা ইউজ হইসে "কুল্লুন" যার অর্থ,  সব সকল বা প্রত্যেক বা all, each, every. তাহলে এটা বৈজ্ঞানিক ভুল নয় কি?

1 Answers
On behalf of the authors answered 3 months ago

আমাদের এক লেখক উত্তর দিয়েছেন,

ইমাম আল বাঘাবী (রহঃ) তাঁর তাফসীরে বলেছেন,

তারপরে সমস্ত ফল খাও৷ "(কুল্লু) সব" এর অর্থ আমভাবে সব নয়, এবং এটি আল্লাহর আয়াতের মতো মতো: "[...আমি দেখলাম এক নারী তাদের উপর রাজত্ব করছে...], আর তাকে সব কিছুই দেয়া হয়েছে আর তার আছে এক বিরাট সিংহাসন। " [আন-নামল: 23]।
ثم كلي من كل الثمرات، ليس معنى الكل العموم، وهو كقوله تعالى: وأوتيت من كل شيء [النمل: ٢٣] - তাফসীরে বাঘাবী 3/86 https://shamela.ws/book/12217/1318

এখানে সেই রাণীকে যেমন দুনিয়ার সবকিছু দেওয়া হয় নি, তেমনই মৌমাছিকেও দুনিয়ার সব ফল খেতে বলা হয় নি, বরং যা মৌমাছি খেতে পারবে সেগুলোর কথাই বলা হয়েছে।

আরেক লেখক উত্তর দিয়েছেন,

কুল্লুন শব্দের আক্ষরিক অর্থ সকল বা সব বা প্রত্যেক ইত্যাদি। কিন্তু এটা দ্বারা সব সময় আম ভাবে সব কিছুকে বুঝানো হয় না। এটা দ্বারা নিদিষ্ট জাত, পাত, ধরন, বৈশিষ্ট্য এর প্রতিটাকেও বুঝাতে পারে

আর ব্যখ্যাকারগন বলেছেন এখানে মৌমাছির খাওয়ার জন্য যেগুলো উপযোগী সেগুলোর কথা বলা হয়েছে কুরআনে

আরেক লেখক উত্তর দিয়েছেন,

কুরআন এখানে কোনো ভুল করেনি,বরং এখানে সূক্ষ্মভাবে বৈজ্ঞানিক আশ্চর্যই প্রকাশ পেয়েছে। মৌমাছি ফুলের গর্ভাশয় থেকে মধু সংগ্রহ করে। গর্ভাশয়টাই মূলত একপ্রকার ফল।গর্ভাশয় প্রথমে অপরিণত ফল থাকে।পরবর্তীতে প্রাপ্তবয়স্ক ফলে পরিণত হয়। মৌমাছি ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করে এটা সবাই জানে।কমন বিষয়।কিন্তু ফুলের কোন অংশ থেকে করে,তা কুরআন স্পেসিফিকভাবে ইঙ্গিত করেছে।ফুলের বিভিন্ন অংশ থাকে,যেমন:গর্ভাশয়,বৃতি,গর্ভদন্ড,পরাগধানী,ডিম্বক ইত্যাদি।ফলের কথা বলার মাধ্যমে কুরআন মূলত গর্ভাশয়কেই ইঙ্গিত করেছে।

কুল্লু অর্থ সব ফল নিলেও ভুল কিছু হবে না।কারণ মৌমাছি দুনিয়ার সব গর্ভাশয় থেকেই রস সংগ্রহ করতে পারে।

Back to top button