ইতিহাস

ইসলাম ও ভারতবর্ষঃ কেন ইসলামকে হজম করা যায় নি?

রবীন্দ্রনাথের চারটে লাইন দিয়েই শুরু করা যাক,
হেথায় আর্য, হেথা অনার্য্য
হেথায় দ্রাবিড়, চীন,-
শক হুন-দল পাঠান মােগল
এক দেহে হল লীন।[1]গীতাঞ্জলী, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, পৃ ১০৭ https://bn.wikisource.org/wiki/পাতা%3Aগীতাঞ্জলি_-_রবীন্দ্রনাথ_ঠাকুর.djvu/১৩১
এই কবিতার মধ্যে ভারতীয় সভ্যতার বিশেষ একটা দিক ফুটে উঠেছে। মুসলমানরা আসার আগে ভারতে যেসব বিদেশি শক্তি এসেছিল শক বা হুন তারা এখানে নিজেদের স্বকীয়তা ধরে রাখতে পারেনি। ভারতের মধ্যে মিশে গিয়েছে, চতুর্বর্ণের[2]ব্রাহ্মণ, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য, শূদ্র কোন এক বর্ণে স্থান নিয়েছে। এটা ঐতিহাসিক বিষয়ও। ভারতীয় সভ্যতার একটা বিশেষ দিক রয়েছে তার চরিত্রের ভেতরেই। এর সবচেয়ে বড় নিরাপত্তা হলো এর আভ্যন্তরীণ এই শক্তি। সে বাইরের যে কোনো আগ্রাসনকে প্রতিরোধ করে। সে যদি পরাজিত হয়, তা হলে বিজিত শক্তিকে একটা সময় সে তার নিজের ভেতর থেকেই হজম করে নেয়।
জওহরলাল নেহেরু এই প্রসঙ্গে লিখেছেন,
সে (ভারত) সব সময়ই প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে, কখনও সফল। হয়েছে, আবার কখনও হয়েছে ব্যর্থ। এমনকি, যখন সে সাময়িক সময়ের জন্য ব্যর্থ হয়েছে, তখনও তার ব্যর্থতাকে সে স্মরণে রেখেছে, সুযোগের অপেক্ষায় থেকেছে পরবর্তীতে মোক্ষম সুযোগের জন্য এবং নিজেদের সেভাবেই তৈরি করেছে। তার কৌশল হলো দুই ধরনের; লড়াই করে আগ্রাসী শক্তিকে তাড়িয়ে দেয়া, আর যাদের পরাজিত করা ও তাড়িয়ে দেয়া সম্ভব হবে না, তাদেরকে ভেতর থেকেই হজম করে ফেলা।[3]Jawaharlal Nehru, The Discovery of India
এক পশ্চিমা ইংরেজ ঐতিহাসিকও ঠিক এ কথাটাই বলেছেন,
বিজয়ীদের মোকাবেলার ক্ষেত্রে ভারতের একটা বিশেষ কৌশল রয়েছে। পরাজিত হয়ে সে তাদের প্ররোচিত করে, ধীরে ধীরে প্রলুব্ধ এবং পরিশেষে হজম করে ফেলে। শতশত বৎসরের পরিক্রমায় অনেক বহিঃশক্তিই কর্তৃক ভারত আক্রান্ত ও পরাজিত হয়েছে, কিন্তু তাদের কেউই এখানে তাদের উপনিবেশ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এসে তার (ভারতের) ঐ কৌশলকে এড়িয়ে, ভারতীয় সংস্কৃতির ছাঁচে পরিবর্তিত হয়ে নিজেদের বিলীন হওয়াটাকে রোধ করতে পারেনি।[4]William Dalrymple, White Mughals
এ প্রসঙ্গে মনে রাখা জরুরি বৌদ্ধধর্ম কিন্তু ব্রাহ্মণ্য ধর্মের চরম বিরোধী হিসেবে উদিত হয়েছিলো কিন্তু আজ ভারতে বৌদ্ধধর্ম দেখে আলাদাভাবে চিনতে পারা যায়? গৌতম বুদ্ধকে তো নবম অবতার হিসেবেও মেনে নেওয়া হয়েছে। ঐ সহজকথায় বৌদ্ধ ধর্মকে পুরোপুরি হজম করে ফেলা হয়েছে। এটাই মারাত্মক দিক ভারতীয় সভ্যতার।
কিন্তু এই অসাধারণ ক্ষমতাটা ইসলামের বেলা খাটেনি। যদিও মুসলিম শাসনামলে ইসলাম ধর্মকেও হজম করার চেষ্টা করা হয়েছিল বিভিন্ন বানোয়াট পুস্তক রচনা করে যেমন আল্লোপনিষদ ইত্যাদি। এর কারণ হলো ইসলামের কংক্রিট একটা আইডিওলজি আছে। আর মুসলমানরা একটা মজবুত মতাদর্শ নিয়েই ভারতে এসেছিল। উল্টো ইসলামই ভারতীয় সভ্যতাকে প্রভাবিত করে ফেললো।
বুচ ম্যাগানল্যাল বলেছেন,
ইসলাম ও ভারতবর্ষঃ কেন ইসলামকে হজম করা যায় নি?
The Hindus wrote Allopanishad and tried to incorporate the Muslims into their fold; but the strong anti-polytheistic and anti-idolatrous attitude of Islam and also the superiority complex of a conqueror’s mentality have prevented this fusion.
হিন্দুরা আলোপনিষদ রচনা করে এবং মুসলমানদেরকে তাদের ভাঁজে অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করেছিল; কিন্তু ইসলামের পৌত্তলিকতা-বিরোধী ও মূর্তিপূজা-বিরোধী মনোভাব এবং বিজয়ীর মানসিকতার শ্রেষ্ঠত্ব এই সংমিশ্রণকে বাধা দিয়েছে।[5]Rise And Growth Of Indian Liberalism From Ram Mohan Roy To Gokhle
by Buch Maganlal (1938) https://archive.org/details/in.ernet.dli.2015.53144/page/n21/mode/1up
স্বামী ঘনানন্দ এ সম্পর্কে লিখেছেন,
ইসলাম ও ভারতবর্ষঃ কেন ইসলামকে হজম করা যায় নি?
The Hindus were willing and ready to absorb the Muslims. They made peace with them. They recognized Allah as an aspect of the Godhead in the Allopanishad and adored Him. They loved Akbar and other good and great Mohammedan kings. But all the same, Islam remained a distinct religion, unassimilated and unassimilable. And today it is the religion of nearly one-fifth of India.
হিন্দুরা মুসলমানদের শুষে নিতে ইচ্ছুক ও প্রস্তুত ছিল। তারা তাদের সাথে শান্তি স্থাপন করেছিল। তারা আলোপনিষদে আল্লাহকে ভগবানের একটি দিক হিসেবে উপস্থাপন করে এবং তাঁকে উপাসনা করা শুরু করে। তারা আকবর এবং অন্যান্য ভাল ও মহান মুহাম্মদীয় রাজাদের ভালবাসত। কিন্তু সর্বোপরি, ইসলাম একটি স্বতন্ত্র ধর্ম হিসেবেই রয়ে গেছে, যা একত্রিত ও অবিমিশ্র। এবং আজ এটি ভারতের প্রায় এক-পঞ্চমাংশের ধর্ম।[6]Vedanta Kesari (1929-30) Vol.16, পৃ ২২২
https://archive.org/details/in.ernet.dli.2015.40631/page/n226/mode/1up
প্রখ্যাত ঐতিহাসিক আর্নল্ড টয়েনবি বলেন,
যে বিদেশী মুসলিম সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে ভারত নিজস্ব সংস্কৃতিক সত্তায় আত্মস্থ করতে পারলো না, সেই বিদেশী মুসলমানরা স্থানীয় ধর্মান্তরিত মুসলমানদের সাথে মিলে এই প্রথমবারের মত ভারতকেই নিজেদের সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে এনে দাঁড় করালো।[7]Arnold Toynbee, Mankind and Mother Earth
প্রফেসর আর্নল্ড টয়েনবি আরো লিখেছেন,
মুসলমানরাই হলো ভারত আক্রমণকারী প্রথম বহিঃশক্তি, ভারত যাদেরকে আত্তীকরণ করতে ব্যর্থ হলো। বৌদ্ধ এবং হিন্দু ধর্ম থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলমান হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু মুসলমান থেকে বৌদ্ধ বা হিন্দু ধর্মে ধর্মান্তরিত হওয়ার ঘটনা ঘটেনি। ইসলাম এই উপমহাদেশে একটি রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েও বিদেশি শক্তি হিসেবেই রয়ে গেল, কারণ, এটাকে (ইসলামকে) সাংস্কৃতিকভাবে পরাস্ত করা সম্ভব নয়। তার এই বিশেষ বৈশিষ্ট্যটা ভারতীয় সমাজ জীবনের সাংস্কৃতিক ঐক্যকে ভেঙে চুরমার করে দিল আর এই ভাঙন ভারতের ইতিহাসকেই বদলে দিল।[8]Arnold Toynbee, Mankind and Mother Earth
ইতিহাস ঘেঁটে দেখলে এটা পরিষ্কার দেখতে পাওয়া যায় যে, পৃথিবীতে হিন্দুত্ববাদী বা খ্রিষ্টবাদী বা বৌদ্ধ বা এরকম অন্য কোনো সংস্কৃতি রাষ্ট্রশক্তির প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া টিকে থাকতে পারে না। কিন্তু ইসলামি সংস্কৃতিই একমাত্র সংস্কৃতি, যা কোন রকম রাষ্ট্রীয় সহায়তা বা পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়াই টিকে থাকতে পারে। ঐতিহাসিক টয়েনবি বলেন,
সূত্রানুযায়ী ধর্ম টিকে থাকার জন্য একটি রাষ্ট্রীয় অবকাঠামোর উপস্থিতি অপরিহার্য, কিন্তু বাস্তবতা এ সূত্রকে অকার্যকর প্রমাণিত করলো। বাস্তবতা এটা প্রমাণ করে দেখালো যে, ইসলাম কোন রাষ্ট্রশক্তির পৃষ্ঠপোষকতা বা সহযোগিতা ছাড়াই টিকে থাকতে এবং বিস্তার লাভ করতে পারে।[9]Arnold Toynbee, Mankind and Mother Earth

    Footnotes

    Footnotes
    1গীতাঞ্জলী, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, পৃ ১০৭ https://bn.wikisource.org/wiki/পাতা%3Aগীতাঞ্জলি_-_রবীন্দ্রনাথ_ঠাকুর.djvu/১৩১
    2ব্রাহ্মণ, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য, শূদ্র
    3Jawaharlal Nehru, The Discovery of India
    4William Dalrymple, White Mughals
    5Rise And Growth Of Indian Liberalism From Ram Mohan Roy To Gokhle
    by Buch Maganlal (1938) https://archive.org/details/in.ernet.dli.2015.53144/page/n21/mode/1up
    6Vedanta Kesari (1929-30) Vol.16, পৃ ২২২
    https://archive.org/details/in.ernet.dli.2015.40631/page/n226/mode/1up
    7, 8, 9Arnold Toynbee, Mankind and Mother Earth
    5 2 votes
    Article Rating
    Subscribe
    Notify of
    guest
    3 Comments
    Oldest
    Newest Most Voted
    Inline Feedbacks
    View all comments
    বোকা নাস্তিক
    বোকা নাস্তিক
    1 month ago

    মাশাআল্লাহ,
    ৩৩ কোটি মিলে ইসলাম ধর্মের কিছু করতে পারেনি।
    হিন্দুদের একটা অহংকার হচ্ছে, তাদের ধর্ম নাকি পুরাতন ধর্ম। গুগোলও একই কথা বলে। অবশ্যই গুগোলের CEO একজন হেদূ।

    মণিহারা ফণী
    মণিহারা ফণী
    22 days ago

    Many thanks and best wishes to the author. This article helped me a lot.

    Anti-Pajeet
    Anti-Pajeet
    Reply to  মণিহারা ফণী
    18 days ago

    Who r u?
    What is your name

    Back to top button